অধ্যক্ষের হাতে লাঞ্চিত ছাত্রীর পিতার লিখিত অভিযোগ

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগরস্থ সুজা মেমোরিয়াল কলেজের অধ্যক্ষের হাতে লাঞ্চিত ছাত্রীর পিতা কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
সুজা মেমোরিয়াল কলেজের মানবিক বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী সাজেদা রিয়ার বাবা এ অভিযোগে বলেন, গত রবিবার (৩১ মার্চ) প্রতিদিনের ন্যায় তার মেয়ে সাজেদা রিয়া নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সুজা মেমোরিয়াল কলেজে গিয়েছিল। সাজেদা রিয়া সহপাঠীদের সাথে কলেজের বারান্দায় দাঁড়িয়ে ছিলেন। সেসময় হঠাৎ বৈরী আবহাওয়ার কারণে শুরু হয় ঝড়বৃষ্টি ও বজ্রপাত। তখন দ্রুত ক্লাসরুমের ভেতর ঢুকতে চাইলে ঝড়ো বাতাসের কারণে দরজা বন্ধ হলে কলেজ ছাত্রী সাজেদা রিয়া দরজা জোরে ধাক্কা দিয়ে ভিতরে ঢুকেন। জোরে দরজা লাগানোর বিষয়টি উক্ত কলেজের ব্যবসায় ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রভাষক মাসুদুর রহমানের নজরে আসলে তিনি কলেজ ছাত্রী সাজেদা রিয়াকে জিজ্ঞেস না করে অধ্যক্ষ ম. মো. মুর্শেদুর রহমানকে বিষয়টি অবহিত করেন। অধ্যক্ষ ম. মো. মুর্শেদুর রহমান ক্লাস চলাকালীন সময়ে ক্লাসে এসে সহপাঠীদের সামনে ছাত্রীকে অশ্নীল ভাষায় গালিগালাজ করেন। এসময় কলেজ ছাত্রী কান্নাজড়িত কন্ঠে জানায় ঝড়বৃষ্টি ও বজ্রপাতের শব্দের ভয়ে বারান্দা থেকে দ্রুত ক্লাস রুমে ঢুকতে চাইলে দরজায় জোরে ধাক্কা লাগে। তারপরও অধ্যক্ষ সহপাঠীদের সামনে ছাত্রীকে অশ্নীল ভাষায় গালিগালাজ করেন। লজ্জায় কলেজ ছাত্রী সাজেদা রিয়া কান্না করলে, এক পর্যায় শিক্ষক মাসুদুর রহমান কলেজ ছাত্রী সাজেদা রিয়াকে হাতে ধরে টান দিয়ে অধ্যক্ষের পায়ে ফেলে দেন, তখন কলেজ ছাত্রী জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। কলেজের সহপাঠীদের সহযোগিতায় সাজেদা রিয়াকে তার বাড়িতে আনা হয়। কলেজ ছাত্রীর জ্ঞান ফিরলে কলেজের ঘটনাটি তার পিতাকে অবহিত করে, পিতা মেয়েকে সান্তনা দেন।
আজ শুক্রবার (৫ এপ্রিল) সকালে কলেজ ছাত্রীর পিতা কুলাউড়া উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের কেওলাকান্দি গ্রামের মোঃ কুতুব আলী (সাবেক মেম্বার) কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
কুলাউড়া উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের কেওলাকান্দি গ্রামের বাসিন্ধা কলেজ ছাত্রীর পিতা মোঃ কুতুব আলী (সাবেক মেম্বার) বলেন ঘটনার দিন রাত ১টার দিকে তার মেয়ের শরীরে খিচুনি শুরু হয়, স্থানীয় পল্লী চিকিৎসককে দেখালে অবস্থার আরো অবনতি হলে, দ্রুত সাজেদা রিয়াকে মৌলভীবাজারের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত লাঞ্চিত ছাত্রীর পিতার কাছ থেকে জানা যায়, সুজা মেমোরিয়াল কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে লাঞ্চিত ছাত্রীর সহপাঠীরা আগামী রবিবার (৭ এপ্রিল) মানববন্ধন করতে চাইলে কলেজের প্রভাষক আব্দুল আহাদ কতৃক ভয়ভীতি দেখিয়ে মানববন্ধন পন্ড করার চেষ্টা করছেন।

Leave a Reply