জন ভোগান্তি চরমে ফুটওভারব্রিজে ছাউনি না থাকায়

সেনারগাঁয়ে ফুটওভারব্রীজে ছাউনি না থাকায় চরম ভোগান্তি

সোনারগাঁ প্রতিনিধি (নারায়ণগঞ্জ) ঃ ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের সোনারগাঁয়ে বাসস্ট্যান্ড ও স্থানিয় বাজারসহ ব্যস্ততম এলাকা মোগড়াপাড়া চৌরাস্তায় জনগনের চলাচলের সুবিধার জন্য ফুট ওভারব্রীজ নির্মান করা হলেও এতে কোন ছাউনি না দেয়ায় রোদ বৃষ্টি ঝড়ে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে সাধারণ পথচারীদের।

সড়ক পার হতে দুর্ঘটনা এড়াতে এখন জনগন অনেক সচেতন। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ ব্যবহার করছে এই ওভারব্রীজ। আর বর্তমানে বর্ষা ও গ্রীষ্ম মৌসুমে কথনো কখনো তীব্র গরম আবার হুটহাট বৃষ্টিতে বিপাকে পড়তে হয় তাদের।

মোগড়াপাড়া চৌড়াস্তা এলাকায় কথা হয় হামদার্দ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আনিসুর রহমান নামের এক পথচারীর সঙ্গে, তিনি বলেন, ওভারব্রীজটি বড় ও প্রশস্থ হওয়ায় অনেক উপকার হয়েছে। ঝুঁকি নিয়ে আর রাস্তা পার হতে হয়না। কিন্তু এত দীর্ঘ ওভারব্রীজে ছাউনি না থাকায় আমি দু’দিন বৃষ্টিতে ভিজেছি, কারন কলেজ বাস নিচে অপেক্ষা করছে। ছাউনি থাকলে অনেক সুবিধা হতো। বাবু নামে আরেক দোকান কর্মচারী বলেন, রাস্তার দুই পাশেই অনেক মার্কেট ও বাজার থাকায় সব সময়ই দরকারি প্রয়োজনে মানুষকে এপার থেকে ঐপার আসা যাওয়া করা লাগে। তখন হঠাৎ বৃষ্টি নামলে মালপত্র নিয়েই ভিজে যেতে হয়। ওভারব্রীজের গোড়ায় কোন যাত্রী ছাউনিও না থাকায়, বৃষ্টি আসলে মানুষ দৌড়ে ছুটাছুটি করে কোন না কোন মার্কেটে গিয়ে আশ্রয় নেয়।

ওভারব্রীজ বর্জনকারী এক পথচারীর মন্তব্য, ঢাকায়ত দেখি ওভারব্রীজ ব্যবহারে উদ্বুদ্ধ করতে সরকার কত উদ্যোগ নেয়। সেখানে লিফটও লাগায় দিছে, আর আমাগো সোনারগাঁয়ে লিফটও নাই ছাউনিও নাই, কোন সুবিধাই নাই। মানুষ যদি সুবিধাই না পায় তাহলে কষ্ট করে এত উপরে উঠে দীর্ঘ ওভারব্রীজ কেন ব্যবহার করবে ? তাই কষ্ট এড়াতে শটকাটে নিচে সড়কের ফাঁক-ফোকর দিয়ে রাস্তা পার হইলাম।

এ বিষয়ে সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকার আমাদের নতুন সময় কে বলেন, খুবই ভালো একটি বিষয় নিয়ে বলেছেন। আসলেই এখানে একটি ছাউনি দরকার। আমরা চেষ্টা করছি ফুটওভারব্রীজে ছাউনি এমনকি দুই পাশে পাবলিক টয়লেট নির্মানেরও উদ্যোগ নিয়েছি। আশাকরি শীঘ্রই এটা করতে পারবো।

উল্লেখ্য, রাস্তা পারাপারে দুর্ঘটনা এড়াতে যত্রতত্র পথচারী পারাপার বন্ধ করে ২০১৫ সালে ফোর লেন সড়কের উপর এই ওভারব্রীজটি নির্মান করা হয়। এরপর পর্যায়ক্রমে ২০১৯ সালের শুরুতে প্রায় আট লেন দীর্ঘ করা হয় ওভারব্রীজটি। আর সড়ক দিয়ে পারাপার বন্ধ হওয়ায় কমেছে অনেক দুর্ঘটনা।

Leave a Reply